জানুন পৃথিবীর সবচেয়ে বিপজ্জনক ও ভৌতিক স্থানসমূহ সম্পর্কে।

আপনার ভ্রমণকৃত সবচে বিপজ্জনক স্থান কোনটি ? একটি আগ্রাসী নদী ? অথবা বিপজ্জনক প্রাণী সঙ্কুল কোন ট্রপিক্যাল রেইনফরেস্ট ? আদতে, পৃথিবীতে এমন অনেক স্থান রয়েছে যেখানে যাওয়া বা ভ্রমণ করা মানুষের জন্য  হতে পারে অনেক বেশি বিপজ্জনক। এই তালিকায় যেমন রয়েছে প্রাকৃতিক সৃষ্টি মারাত্মক হারিকেন-প্রবণ স্থান তেমনি রয়েছে মানুষ সৃষ্ট যুদ্ধ-বিধ্বস্ত দেশ বা শহরগুলো। তো পাঠক একবার চোখ বুলিয়ে নিন পৃথিবীর সবচেয়ে বিপজ্জনক স্থানসমূহ সম্পর্কে

সোহেল, উত্তর আফ্রিকা

সোহেল, উত্তর আফ্রিকা সাহারা মরুভূমি অঞ্চলের সীমান্তবর্তী একটি প্রদেশ। অতিরিক্ত খরার এবং পানি স্বল্পতার কারনে এখানে মানুষের পক্ষে জীবন ধারণ করা প্রায় অসম্ভব। এক পরিসংখ্যান মতে, ১৯৭২ থেকে ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত ১২ বছরে এই অঞ্চলে শুধু খরার কারনে ১০০,০০০ লোক মারা যায়!

ডানাকিল মরুভূমি, পূর্ব আফ্রিকা

বিপজ্জনক
ডানাকিল মরুভূমি By Ji-ElleOwn work, CC BY-SA 3.0, Link

আফ্রিকার আরো একটি রুক্ষ এবং বিপজ্জনক স্থান। বিশ্বের অন্যতম প্রতিকূল এবং বিপজ্জনক স্থান হিসেবে পরিচিত ডানাকিল মরুভূমি, যার উত্তরপূর্বে ইথিওপিয়া, দক্ষিণে ইরিত্রিয়া এবং উত্তরপশ্চিমে জিবুতিতে অবস্থিত। এছাড়াও এলাকাটি আগ্নেয়গিরি এবং গেইসারের (গেইসার হলো ভূ-অভ্যন্তর থেকে উৎক্ষিপ্ত গ্যাস বা গরম পানি) জন্য বিশেষভাবে পরিচিত। দিনে এই এলাকার তাপমাত্রা ৫০°সি পর্যন্ত পৌঁছায়।

সিরিয়া

গত কয়েক বছরের চলমান সহিংস সংঘর্ষের কারণে, সিরিয়া বিশ্বের সবচেয়ে বিপজ্জনক দেশগুলোর মধ্যে স্থান পেয়েছে। যুদ্ধ-বিধ্বস্ত এই দেশটির অধিবাসীরা দীর্ঘদিন যাবত চিকিৎসাসহ মৌলিক চাহিদা থেকে বঞ্চিত। এমনকি যুদ্ধে তারা রাসায়নিক অস্ত্রের হামলার শিকার হয়েছে!

আলাগোজ, ব্রাজিল

ব্রাজিলের মহানগরী রিও ডি জেনিরো এবং সাও পাওলো বিশ্ববাসীর কাছে একটি ‘অতি উচ্চ অপরাধ প্রবণ এলাকা’ হিসেবে পরিচিত। কিন্তু শহর দুটির একটিরও অপরাধ প্রবণতার হার আলাগোজ সমান নয়। বস্তুত কম পরিচিত এই উপকূলীয় প্রদেশটির খুনের হার ব্রাজিলের মধ্যে সর্বোচ্চ এমনকি সম্ভবত বিশ্বেও। প্রায় ৩০ লক্ষ লকের এই প্রদেশে প্রতি বছর ২০০০ টির মত হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হয়।

মাউন্ট সিনাবুং, ইন্দোনেশিয়া

বিপজ্জনক
মাউন্ট সিনাবুং, ইন্দোনেশিয়া By Kenrick95Own work, CC BY-SA 3.0, Link

ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপে অবস্থিত মাউন্ট সিনাবুং একটি  stratovolcano (stratovolcano; বহু স্তরের (স্তর) কঠিনীভূত লাভা, টিফ্রা, পুমা, এবং আগ্নেয় ছাই দ্বারা নির্মিত আগ্নেয়গিরি) খুবই ঘন ঘন এখানে অগ্ন্যুত্পাত ঘটে এবং বহু মানুষের চরম সর্বনাশ করে এই অগ্নিগিরি। অগ্ন্যুত্পাতের সময় বহু নিকটবর্তী শহর ও গ্রাম সম্পূর্ণভাবে লাভা ও ছাইয়ে আচ্ছাদিত হয়ে যায়। এর মধ্যে ২০১০, ২০১৩, ২০১৪, ২০১৫ এবং ২০১৬ সালের  অগ্ন্যুত্পাতের ঘটনাগুলো বিশেষভাবে উল্লেখ্য। এবং দুর্ভাগ্যবশত, অগ্ন্যুত্পাতে ইতিমধ্যে বহু মানুষ নিহত হয়েছে।

কঙ্কাল তটভূমি, নামিবিয়া

নামিবিয়ার আটলান্টিক উপকূল বরাবর অবস্থিত কঙ্কাল তটভূমি পৃথিবীর অন্যতম বসবাস অনুপযোগী স্থান হিসাবে পরিচিত। উপকূল বরাবর বিক্ষিপ্তভাবে ছিটিয়ে থাকা তিমি এবং সীল এর কঙ্কালগুলোর কারনে এর নাম কঙ্কাল তটভূমি। এখানকার চরমভাবাপন্ন পরিবেশের কারণে অনেক মানুষ (প্রধানত জাহাজ দুর্ঘটনার শিকার নাবিকরা, যারা এই উপকুলে আশ্রয় নিয়েছিল) এখানে মারা গেছে।

উত্তর কোরিয়া

একটি সর্বগ্রাসী একনায়কতন্ত্রের দেশ উত্তর কোরিয়া, যেখানে মানবাধিকার বলতে কিছু নেই। মানবাধিকারের ক্ষেত্রে এটি পৃথিবীর বাজে দেশগুলোর একটি। স্থানীও বা বিদেশীরা এমন সব ছোট বিষয়ের জন্য গ্রেফতার হতে পারেন যা অন্য দেশগুলোতে সাধারন বিষয় হিসেবে গণ্য করা হয়। এশিয়ার এই দেশটির সাথে আমেরিকার সম্পর্ক খারাপ হওয়ার কারনে দেশটি আমেরিকার পর্যটকদের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক।

সাপের দ্বীপ, ব্রাজিল

বিপজ্জনক
গোল্ডেন ল্যান্সহেড ভাইপার দেখা যায়। By NayeryouakimOwn work, CC BY-SA 4.0, Link

অফিসিয়াল নাম ‘Ilha de Queimada Grande’ ব্রাজিলের সাও পাওলোর উপকূলে অবস্থিত একটি দ্বীপ। কিন্তু সাধারন দ্বীপ থেকে অনেক আলাদা এই দ্বীপটি বিশেষভাবে কুখ্যাত প্রচুর সাপের কারনে। এবং এটিই একমাত্র দ্বীপ যেখানে গোল্ডেন ল্যান্সহেড ভাইপারের দেখা পাওয়া যায়। বলা হয়ে থাকে যে, এই সাপের বিষ এতই বিষাক্ত যে এই বিষ মানুষের দেহকে গলিয়ে দিতে পারে। এটা বলা বাহুল্য যে, ব্রাজিল সরকার দ্বীপটিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে।

ওয়ামিয়াকন, রাশিয়া

মস্কো থেকে হাজার মাইল পূর্বে অবস্থিত ওয়ামিয়াকনসি জেলার ইন্ডিগরিকা নদীর তীরের একটি গ্রাম ওয়ামিয়াকন। পৃথিবীতে যেই স্থানগুলোতে স্থায়ীভাবে মানুষ বাস করে এমন জায়গাগুলোর মধ্যে এই স্থানটির তাপমাত্রা সর্বনিম্ন। ১৯২৪ সালে শীতকালে গ্রামটির তাপমাত্রা -৭১.২ সেলসিয়াসে নেমে গিয়েছিলো। 

পৃথিবীর শীতলতম এই গ্রামটিতে প্রায় ৫০০ লোক বসবাস করে। মোবাইল ফোন এখানকার ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় কাজ করে না। এবং স্বাভাবিকভাবেই গ্রামটিতে কোন গাছও জন্মায় না।

গুয়াটেমালা

গুয়াটেমালা বিশ্ব দরবারে এর উচ্চ সন্ত্রাসীমূলক কাজের জন্য পরিচিত। কিতু এছাড়াও আরও একটি কারনে আমাদের আজকের এই তালিকায় জায়গা করে নিয়েছে মধ্য আমেরিকার এই দেশটি।

এর ভৌগোলিক অবস্থান এবং ভূসংস্থানের কারনে দেশটি তিন ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগের মুখোমুখি হয়। সেগুলো হলোঃ ভূমিকম্প, হারিকেন এবং ভূমিধ্বস। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, ১৯৭৬ সালের ভূমিকম্পের কথা। ৭.৫ মাত্রার শক্তিশালী সেই ভূমিকম্পে তখন প্রায় ২৩,০০০ লোক নিহত হয়।

সানা, ইয়েমেন

সানা, ইয়েমেনের রাজধানী শহর। অনেক কারনেই বিখ্যাত শহর এই সানা। যেমন বলা যায়, এটি পৃথিবীর প্রাচীনতম শহরগুলোর একটি। আবার পৃথিবীর উচ্চতম শহরও এই সানা। যা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ২৩০০ মিটার বা ৭৫০০ ফুট উঁচুতে অবস্থিত। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে সন্ত্রাসীদের একের পর এক বোমা হামলা, গুপ্তহত্যা এবং আক্রমণের কারণে এটি পৃথিবীর অন্যতম একটি বিপজ্জনক স্থান।

মানাউস, ব্রাজিল

প্রায় ২০ লক্ষ লোকের বাস ব্রাজিলের এই শহরে। ব্রাজিলের উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত এই শহরটির অপরাধের হার  দেশটির অন্যান্য শহরেগুলোর তুলনায় অনেক কম। কিন্তু অন্য একটি কারণে শহরটি আমাদের তালিকায় রয়েছে।মানাউস শহরটি ব্রাজিলের উত্তর-পশ্চিমে ঠিক আমাজন বনের মাঝে এবং আমাজন নদির তীরে ঘেসে অবস্থিত।

আমাজন পৃথিবীর সবচে বিপজ্জনক কিছু প্রাণীর আবাসস্থল। শহরটির জন্য আমাজন নদীটি খুবিই গুরুত্বপূর্ণ। আর কেউ যখন এই নদীতে সাতার নৌকা চালায়, তার মানে তখন সে নদীর পানি শেয়ার করছে পিরানহা, এনাকোন্ডা, ইলেক্ট্রিক ঈল বা অন্য কোন  বিপজ্জনক প্রাণীর সাথে!

নেপলস, ইতালি

ইতালির সবচে বড় শহরগুলোর একটি নেপলস এর বিশাল সব দৃষ্টিনন্দন স্থাপত্য আর ক্যাসিনোগুলো জন্য বিখ্যাত। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে ইতালির নেপলসকে বলা হয় পৃথিবীর সবচে বড় মরন ফাঁদ। কারণটা খুবিই সাধারণ– সম্পূর্ণ নেপলস শহরটি ক্যাম্প ফ্লেগরি নামের একটি দানবীয় আগ্নেয়গিরির কাছে অবস্থিত। সুপ্ত অবস্থায় থাকা এই আগ্নেয়গিরিটি যদি অগ্নি উৎপাত শুরু করে তাহলে ঘটে যেতে পারে প্রলয়ঙ্করী  ঘটনা। বিজ্ঞানীদের মতে, ক্যাম্প ফ্লেগরির যে কোন ধরণের অগ্নি উৎপাত লক্ষ লক্ষ লোকের মৃত্যুর কারন হতে পারে।

বারমুডা ট্রায়াঙ্গল

বা শয়তানের ত্রিভূজ নামেও সমানভাবে পরিচিত।মূলত বারমুডা ট্রায়াঙ্গল বলতে বোঝানো হয়  আটলান্টিক মহাসাগরের পুয়ের্তো রিকো, ফ্লোরিডা এবং বারমুডার ত্রিকোণ আকৃতির বিশাল রহস্যময় অঞ্চলকে। আর এই রহস্যের শুরু প্রায় ৪০০ বছর আগে যখন কলম্বাস নিউ ওয়ার্ল্ড তথা আমেরিকা আবিষ্কার করেন। সেই শুরু, বারমুডা ট্রায়াঙ্গলে এরপর থেকে অনেক জাহাজ, উড়োজাহাজ নিখোঁজ হয়েছে রহস্যজনক ভাবে। বারমুডা ট্রায়াঙ্গল নিয়ে আছে অনেক গুজব। আছে নানা মুনির নানা মত। কারো মতে জাহাজ উড়োজাহাজের অন্তর্ধান নিছক দুর্ঘটনা মাত্র। আবার কারো মতে, বারমুডা ট্রায়াঙ্গল ভিনগ্রহের কোন প্রাণীদের দ্বারা নির্মিত!

ডেথ ভ্যালি, ক্যালিফোর্নিয়া

ক্যালিফোর্নিয়ার ও নেভাদা সীমান্তের কাছে গ্রেট বেসিনে অবস্থিত ডেথ ভ্যালি। গ্রীষ্মকালে এই এলাকার তাপমাত্রা ৫৬.৭° সেঃ বা ১৩৪ ডিগ্রী ফারেনহাইট পর্যন্ত তাপমাত্রা পর্যন্ত পৌঁছায়। আবার আশ্চর্যজনকভাবে, শীতকালে এখানে প্রচুর ঠান্ডা পরে। উপরন্তু, বৃষ্টির ফলে সৃষ্ট ফ্লাশ ফ্লাড এখানে মারাত্মক হয়ে দেখা দেয়।

ফিচার ইমেজ: Wikipedia

Author

Recent Posts

Leave a Reply

5 + 19 =

Close Menu